Friday, May 20, 2016

আইজল জিতলে লেস্টারের চেয়েও বড় কৃতিত্ব হবে । ভাইচুং ভুটিয়া - আনন্দবাজার

এ বারই আই লিগ থেকে তাদের অবনমন ঘটেছে। অথচ ফেড কাপ ফাইনালে পৌঁছেছে সেই আইজল এফসি-ই! নিঃসন্দেহে এটা ভারতীয় ফুটবলে একটা অভূতপূর্ব ঘটনা। এ রকম উত্থান সহজ নয়। কিন্তু মিজোরামের দলটা সেটাই করে দেখিয়েছে।

‘ক্ষত্রিয়’ জহর আজ লক্ষ্যভেদে মরিয়া | রতন চক্রবর্তী - আনন্দবাজার

সামনে খোলা ল্যাপটপ।
মিডিয়ার লোক ঘরে ঢুকলেই সেটা বন্ধ করে দিচ্ছেন।
বারবার কী দেখছেন ল্যাপটপে? প্রশ্ন করলেই হেসে এড়িয়ে যাচ্ছেন। ‘‘ওই একটু পড়াশোনা করছিলাম।’’
খোঁজ নিলে অবশ্য জানতে পারা যাবে, সনি-গ্লেনদের খুঁটিনাটি আইজল কোচের ওই ল্যাপটপে বন্দি।

ফেডারেশন কাপ ফাইনালের আগের দিনও চূড়ান্ত অব্যবস্থা | রতন চক্রবর্তী - আনন্দবাজার

আইজল থেকে গাঁটের কড়ি খরচা করে আসা জনাচারেক ছেলেমেয়ে সকালে ইন্দিরা গাঁধী স্টেডিয়ামে এসেছিলেন টিকিটের খোঁজে। ঘণ্টাখানেক ঘোরাঘুরির পর হতাশ হয়ে ফিরে গেলেন। শনিবারের ফেড কাপ ফাইনালের কোনও টিকিট কাউন্টারই খোলা হয়নি তখনও!

কবে ফিরব ঈশ্বরই জানেন: সনি নর্ডি | বর্তমান


নিজস্ব প্রতিনিধি, গুয়াহাটি, ২০ মে:: অনুশীলন সেরে সকলের আগে ড্রেসিংরুমে ফিরলেন সনি নর্ডি। দুপুরে এক পশলা বৃষ্টির পর এখানে আবহওয়া কিছুটা ভালো হলেও সকালের দিকে তীব্র গরম ছিল। সনিকে ড্রেসিংরুমের সামনে ধরে প্রশ্ন করা হয়, আবার কবে ফিরবেন? সনি বলেন, সেটা সম্পূর্ণ ঈশ্বরের হাতে। তিনি চাইলে আবার সবুজ মেরুন জার্সি গায়ে খেলব। সহ সচিবের গুয়াহাটি আসার অন্যতম কারণ সনির সঙ্গে কথা বলা। কলকাতা ছাড়ার অর্থ সচিবের সঙ্গেও কথা বলবেন তিনি। এক শীর্ষ কর্তা যা ইঙ্গিত দিলেন তাতে ডিসেম্বর থেকেই তাঁকে চাইছে মোহন বাগান। কলকাতা লিগে মোহন বাগান বড় বাজেটের টিম করছে না।

ফেড কাপ জিতলে ডার্বিতে ব্যর্থতার কথা কেউ মনে রাখবে না : সঞ্জয় | বর্তমান

জয় চৌধুরি, গুয়াহাটি, ২০ মে: চলতি মরশুমে মোহন বাগান ভারতের প্রায় সব দলকেই হারিয়েছে। ব্যতিক্রম ইস্ট বেঙ্গল। ফেড কাপ জিতলে ৫১ সপ্তাহ পর মোহন বাগান আবার ট্রফি পাবে। মরশুমে ট্রফিহীন থাকতে হবে না। কিন্তু সব দলকে হারালেও মোহন বাগান শেষ হতে চলা বর্তমান মরশুমে একবারও ইস্ট বেঙ্গলকে হারাতে পারল না কেন?

চলো ফেড কাপ জিতি : সনি | বর্তমান

গুয়াহাটি থেকে জয় চৌধুরি, ২০ মে: ইন্দিরা গান্ধী স্টেডিয়াম আন্তর্জাতিক মানের হলেও প্রস্থে সল্টলেক স্টেডিয়ামের মতো নয়। অনেকটা কাঞ্চনজংঘা স্টেডিয়ামের মতো। পেনাল্টি বক্স আর কর্নার ফ্ল্যাগের মধ্যে ব্যাবধান কম। মাঠটি প্রস্থে কম হওয়ায় ফেড কাপ ফাইনালে সনি-কাটসুমির ঝড় রুখে দেওয়ার জন্য বাড়তি সুবিধা পাবে আইজল এফ সি।

ফেড ফাইনালে হট ফেবারিট মোহনবাগান । সৌমিত্র কুমার রায় - আজকাল

অসমিয়া শব্দ ‘গুয়াহাটি’–র বাংলা তর্জমা করলে দঁাড়ায় সুপারির বাজার। শনিবার সেই গুয়াহাটির ইন্দিরা গান্ধী স্টেডিয়ামে ফেড ফাইনাল যুদ্ধে মোহনবাগান ধ্বংসে আইজল তা হলে সুপারি কিলার লাগাল নাকি?
তা জানা নেই। তবে ‘ফিট’ করেও কতটা কী করতে পারবে তাতে ঘোর সন্দেহ রয়েছে। কেন? বাগান শেষবার ২০০৮–এ ফেড কাপ চ্যাম্পিয়ন হয়। দীর্ঘ ৮ বছরের খরা কাটিয়ে ফেড কাপ জিততে সনি, জেজে, দেবজিৎরা যেন একেকটা ক্ষুধার্ত বাঘের মতো, সঙ্গে খোঁচা খাওয়াও বটে।

বেঙ্গালুরু–কে দু’বার হারালে মোহনবাগান নয় কেন? জহর | সৌমিত্র কুমার রায় - আজকাল

আই লিগে ভালই ঝটকা দিয়েছে। শনিবার ইন্দিরা গান্ধী স্টেডিয়ামে ফেড কাপ ফাইনালে কি পারবে আইজল? প্রতিপক্ষ, তখনের থেকে এখন বদলে যাওয়া বাগান। সবুজ–মেরুনের অস্ত্রভাণ্ডারের অন্যতম সেরা অস্ত্র— যেমন সনি, জেজে–‌সহ প্রথম দলের ৫ ফুটবলার সেই ম্যাচে ছিলেন না। এখন আছেন।