Monday, April 18, 2016

মরগ্যানের দিকে তাকিয়ে লাল-হলুদ জনতা

এখনও ফিট নন মেন্ডি, দলে ফিরছেন অর্ণব

আই লিগে একটি ম্যাচ বাকি থাকতেই চ্যাম্পিয়ন হয়ে গিয়েছে বেঙ্গালুরু এফ সি। কিন্তু অবনমনের লড়াই কিন্তু জমজমাট। একটা সময়ে মনে হয়েছিল আগামী রবিবার ইস্ট বেঙ্গল ও লাজংয়ের ম্যাচটি খেতাব নির্ধারক ম্যাচ হতে পারে। কিন্তু ভাগ্যের পরিহাসে সেই ম্যাচটি অবনমন বাঁচানোর লড়াইয়ে পরিণত হয়েছে। 




অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশনের শীর্ষ কর্তা লারসিং মিঙের দল গত পাঁচ মরশুম নিয়মিত আই লিগে খেলছে। কিন্তু গত রবিবার মুম্বই এফ সি’র কাছে হেরে এই মুহূর্তে প্রচণ্ডভাবে অবনমনের আশঙ্কায় তারা। ১৫ ম্যাচে ১৫ পয়েন্ট পেয়ে শিলং লাজং এখন নয় দলের লিগ টেবলে গোল পার্থক্যে সবার নীচে রয়েছে। তাদের উপরে গোল পার্থক্যে ১৫ ম্যাচে ১৫ পয়েন্ট পেয়ে রয়েছে ডি এস কে শিবাজিয়ান্স। তবে কর্পোরেট কোটায় অন্তর্ভুক্ত হওয়া ডেরেক পেরেরার দল নামবে না। তাই ১৫ ম্যাচে ১৬ পয়েন্ট পাওয়া মুম্বই এফ সিও অবনমনের আশঙ্কায়। তারা শেষ ম্যাচ খেলবে সালগাওকরের বিরুদ্ধে। সন্তোষ কাশ্যপের দলও ১৫ ম্যাচে ১৬ পয়েন্ট পেয়ে অবনমনের আশঙ্কা থেকে একেবারে মুক্ত নয়। অবনমনের লড়াই এখন জমজমাট। শেষ ম্যাচে শিলংয়ের দল ইস্ট বেঙ্গলকে হারিয়ে দিলে বা ড্র করলে হেড টু হেডে হবে ফয়সালা। এরই মধ্যে মরগ্যান সোমবার রাতে শহরে আসছেন। মঙ্গলবার তিনি কর্মকর্তা ও ফুটবলারদের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন। বুধবার থেকে পুরোদমে অনুশীলনে। লাজং যাওয়ার আগে মরগ্যান ইস্ট বেঙ্গলে দুটি প্র্যাকটিস সেশন পাবেন। ঩ইস্ট বেঙ্গল সমর্থকদের কাছে শেষ ম্যাচটির গুরুত্ব আছে। কারণ আই লিগ ও এ এফ সি কাপ মিলিয়ে মোহন বাগান শেষ ছ’টি ম্যাচ জেতেনি। চারটি ড্র এবং দুটি ম্যাচ হেরেছে। শেষ ম্যাচে মোহন বাগান শিলিগুড়িতে বেঙ্গালুরু এফ সি’কে হারালে রানার্স হয়ে যাবে। কিন্তু মোহন বাগান ড্র করল আর ইস্ট বেঙ্গল হারিয়ে দিল অবনমনের আশঙ্কায় থাকা লাজংকে, তখন কিন্তু রানার্স হবে মেহতাবরাই। অনেকেই বলবেন মোহন বাগান- ইস্ট বেঙ্গল টিম করে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য। চ্যাম্পিয়ন যখন হতে পারেনি তখন আর রানার্স হয়ে লাভ কী? কিন্তু রানার্স হলেও একটি লাভ কিন্তু আছে। আই লিগ চ্যাম্পিয়ন হয়ে আগামী মরশুমে এ এফ সি চ্যাম্পিয়ন্স লিগের বাছাই পর্বে বেঙ্গালুরুর খেলা নিশ্চিত। আর বাছাই পর্বে এগতে না পারলে ২০১৭ সালের এ এফ সি কাপে খেলাও নিশ্চিত। অপর দলটি হবে ফেড কাপ চ্যাম্পিয়ন। তাই মোহন বাগান ও ইস্ট বেঙ্গলের কাছে ফেড কাপের মূল্য অপরিসীম। লাল হলুদের থেকে মোহন বাগানের কাছে প্রতিযোগিতার গুরুত্ব আরও বেশি। কারণ ফেড কাপ না পেলে মোহন বাগান চলতি মরশুমে ট্রফি শূন্য থাকবে। সেই ক্ষেত্রে গত ছয় বছরের ২২টি ট্রফিতে মোহন বাগানের সাফল্য গিয়ে দাঁড়াবে মাত্র একটিতে। আর মহমেডানের বিরুদ্ধে ওয়াকওভার পেয়ে এয়ারলাইন্স ট্রফি ধরলে সেটি দাঁড়াবে দুইয়ে। কিন্তু ফর্মে থাকা তরুণ্যে ভরা দল বেঙ্গালুরু যদি ফেড কাপও পায় তবে আই লিগ রানার্স খেলবে ২০১৭ সালের এ এফ সি কাপের। তাহলে লিগ খেতাবের ফয়সালা হয়ে গেলেও দুই প্রধানের ক্ষেত্রেই শেষ ম্যাচের গুরুত্ব আছে। অবনমনের আশঙ্কা থাকা লাজংয়ের বিরুদ্ধে ইস্ট বেঙ্গলকে সেই ম্যাচে কড়া চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে। তবে বেঙ্গালুরু চ্যাম্পিয়ন হয়ে যাওয়ায় বেশ কিছু অনিয়মিত ফুটবলারকে খেলাতে পারেন ওয়েস্টউড। সেই ক্ষেত্রে মোহন বাগানের কিছুটা সুবিধা।

দুই ম্যাচের সাসপেনশন কাটিয়ে শিলং ম্যাচে ফিরছেন ইস্ট বেঙ্গল স্টপার অর্ণব মন্ডল। তিনি দলের সঙ্গে শিলং যাবেন। অন্যদিকে ওই ম্যাচে মেন্ডি এখনও অনিশ্চিত। মেন্ডি এখন অনুশীলনে এলেও আলট্রাসাউন্ড রে নেন। ইস্ট বেঙ্গল ফুটবলারদের অনুশীলন করান সঞ্জয় মাঝি এবং স্যামি ওমেলো। কেনিয়ান কোচ মূলত স্ট্রেচিংয়ের দায়িত্বে ছিলেন। শেষ ম্যাচটি জিততে মরগ্যানের দিকে তাকিয়ে লাল হলুদ জনতা। তিনি গ্যালারিতে থাকবেন। ম্যাচের বিরতিতেও ফুটবলারদের টিপস দিতে পারবেন। তবে আই লিগের সি ই ও জানিয়েছেন, ‘কোচ বদল করলে ডাগ আউটে বসতেও কিন্তু অসুবিধা নেই। এটা লাল-হলুদ কর্তাদের উপর নির্ভর করছে।’ মরগ্যানের দিকে তাকিয়ে আছেন আইজল এফ সি বাঙালি কোচ জহর দাস। কারণ ২৪ এপ্রিল ইস্ট বেঙ্গল জিতলে লাজং নেমে যাবে, বেঁচে যাবে আইজল।
সোর্স - বর্তমান 

No comments:

Post a Comment